অবশেষে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হলো কর্মী যাবে মালয়েশিয়ায়

0
887

মালয়েশিয়ায় বন্ধ শ্রমবাজার চালুর বিষয়ে একমত হয়েছে দুই দেশ। এই বৈঠকে ন্যূনতম অভিবাসন ব্যয়ে কর্মী পাঠানো, রিক্রুটিং এজেন্সির পরিধি, কর্মীর মেডিকেল এবং শ্রমিকদের আর্থিক সুরক্ষাসহ নানা বিষয়ে আলোচনা হয়।

আজ বুধবার স্থানীয় সময় বেলা ১১টায় মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরের পার্লামেন্ট ভবনে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদ নেতৃত্বে মন্ত্রণালয়ের একটি প্রতিনিধি দল এবং মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী এম কুলাসেগারান নেত্বত্ব দেন। 

বৈঠকে দুই দেশের প্রতিনিধি দলের মধ্যে কর্মী পাঠানোর বিষয়ে বিস্তর আলোচনা হয়।

এদিকে চলতি বছরের ডিসেম্বরেই দেশটিতে কর্মী পাঠাতে আগ্রহী হয়েছে বাংলাদেশ। এ লক্ষ্যে মালয়েশিয়ার একটি প্রতিনিধি দল চলতি মাসে ঢাকায় আসবে।

মালয়েশিয়ায় অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আগামী ২৪ ও ২৫ নভেম্বর ঢাকায় জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। এই বৈঠকের পরই মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানো শুরু করতে পারবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে দুই দেশ।

বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সেলিম রেজা, অতিরিক্ত সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন, যুগ্ম-সচিব ফজলুল করিম, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক মো. আজিজুর রহমান, বিএমইটির পরিচালক মো. নুরুল ইসলাম, হাইকমিশনার মুহ. শহীদুল ইসলাম ও কাউন্সিলর (শ্রম) মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম।

গত বছরের ১ সেপ্টেম্বর থেকে মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানোর অনলাইন পদ্ধতি এসপিপিএ বন্ধ হয়ে যায়। সে সময় তৎকালীন প্রবাসী ও বৈদেশিক কল্যাণ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি মালয়েশিয়া গিয়ে বৈঠক করলেও (২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮) শ্রমবাজার চালু করা সম্ভব হয়নি। 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here