close
রাজনীতি

এক শর্তে বিরোধী দল হতে পারে বিএনপি!

Untitled-1-copy-26-858×400

৩০ ডিসেম্বরের ভোটের ফলাফলের পর জনমনে একটা স্থির ধারণা জন্মেছে যে, এবারও হয়তো এরশাদের জাতীয় পার্টিকেই (জাপা) বিরোধী দল করে সরকার গঠন করতে যাচ্ছে মহাজোট। কিন্তু জাপা কি এবারও বিরোধী দলে যাবে? অথবা মহাজোটে থাকা জাপাকে কি বিরোধী দল করবেন শেখ

 

হাসিনা? নাকি সরকারে নিয়ে নেবেন? এ প্রশ্নটিতে অনেক রাজনৈতিক হিসেব-নিকাশ জড়িত। একদিকে বিএনপি বিরোধী দল হলে সংসদে গিয়ে সরকারের সমালোচনার সুযোগ পাবে দলটির সদস্যরা। গত পাঁচ বছরে যা শুনতে হয়নি আওয়ামী লীগকে। সংসদের বাইরে বিরোধীতা এবং সংসদের

 

ভেতরে বিরোধীরার মধ্যে যে বিস্তর ফারাক তা শেখ হাসিনা ভালো করেই জানেন। সেদিক থেকে জাতীয় পার্টিকে বিরোধী দল করলে নির্ভার থাকবে সরকার। অন্যদিকে নির্বাচনের পরে ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে ফের নির্বাচনের দাবি জানিয়েছেন বিএনপি। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম

আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, আমরা নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করছি, তাই বিএনপির নির্বাচিত সদস্যদের শপথ নেওয়ার প্রশ্নই উঠে না। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা ড. কামাল হোসেনও ফল প্রত্যাখ্যানের কথা জানিয়েছেন।এদিক থেকে বিএনপি এবং ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচিতরা যদি সত্যি

 

সত্যিই এমপি হিসেবে শপথ না নেন তবে সেটাও আওয়ামী লীগের জন্য সমস্যা হয়ে উঠতে পারে। আন্তর্জাতিক মহলে নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হওয়ার সুযোগ দেখা দিতে পারে। বিষয়টি মাথায় রেখে হয়তো শেখ হাসিনা ‘বিএনপির সদস্যরা শপথ নেবেন’ এই শর্তে জাতীয় পার্টিকে মহাজোটের সরকারে রেখে

বিএনপিকে বিরোধী দল করার প্রস্তাব দিতে পারেন। যদি তাই হয় তবে এটাই হবে বাংলাদেশের ইতিহাসে সংসদে সব চেয়ে ছোট (৭ সদস্য) বিরোধী দল। আর বিরোধী দল হওয়ার সুযোগ পেলে বিএনপির নির্বাচিতরাও হয়তো শপথ নিতে রাজি হবেন।আর নির্বাচনের ফলাফলকে সন্দেহের উর্ধে

 

রাখতে ছোট পরিসরের বিরোধী দলকে মেনে নিলেও নিতে পারেন শেখ হাসিনা। কেননা বিগত দিনে গৃহপালিত বিরোধী দলের কারণে শেখ হাসিনাকে অনেক টিপ্পনী সহ্য করতে হয়েছে বটে।

nayem

The author nayem

Leave a Response