close
অপরাধ

সাক্ষাৎকার দিতে এসে আটক ৭ শিক্ষার্থী

Untitled-1-160

বুধবার সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত সাক্ষাৎকার চলাকালীন জালিয়াত সন্দেহে বোর্ডের শিক্ষকরা তাদেরকে প্রক্টরিয়াল বডির মাধ্যমে পুলিশের হাতে তুলে দেন। পরে অপরাধ স্বীকার করায় ওই সাতজনকে তাজহাট থানায় পাঠানো হয়েছে। আটককৃত শিক্ষার্থীরা হলেন, ঠাকুরগাঁওয়ের

 

গোয়ালপাড়ার খাইরুল আহমেদের ছেলে শাফিন আহমেদ (ইউনিট- এফ, শিফট-৪, রোল- ৬৭০৩৮৪, মেধাক্রম ২), গাজীপুর কাপাশিয়ার হাবিবুর রহমানের ছেলে এস এম নাইম (ইউনিট- বি, শিফট, রোল- ২১৯৮৪৬, মেধাক্রম ৩), নীলফামারী কিশোরগঞ্জের মারুফ হাসান (ইউনিট- বি,

 

শিফট-২য়, রোল- ২৭১১৮৯, মেধাক্রম ১), গাজীপুর শ্রীপুরের রাকিবুল ইসলাম শান (ইউনিট- বি, শিফট-২য়, রোল- ২১১৯৮৬, মেধাক্রম ২), টাঙ্গাইল গোডাউন বাজারের শাহরিয়ার ইসলাম (ইউনিট- বি, শিফট-২য়, রোল- ২২০২০০, মেধাক্রম ৯), টাঙ্গাইল সদরের শোয়েব হাসান (ইউনিট-

বি, শিফট-৪র্থ, রোল-২৪৬৮৫৬, মেধাক্রম ৬) এবং শেরপুরের মধ্যশ্বেরীর রাহাত মজুমদার (ইউনিট- বি, শিফট-৪র্থ, রোল- ২৪৭৬৬০, মেধাক্রম ৩৮)। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর আবু কালাম মো. ফরিদুল ইসলাম বলেন, আটককৃতরা সবাই মূল শিক্ষার্থী। তাদের পরীক্ষা অন্য কেউ এসে দিয়ে

 

যাওয়ায় তদের আবার পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে। পাবলিক পরীক্ষা আইন ২০০৯ এর ৫ এর ৬ ধারা অনুযায়ী তারা অপরাধী না হওয়ায় এক্সিকিউটিভ মেজিস্ট্রেট মেহেদী হাসান তাদেরকে পুলিশের মাধ্যমে থানায় প্রেরণ করে এজাহার গ্রহণ করার নির্দেশ দেন।

জালিয়াতির পিছনে কারা আছে পুলিশকে তা খুঁজে বের করে তাদেরকে আইনের আওতায় আনার নির্দেশ দেন তিনি।

nayem

The author nayem

Leave a Response