close

হজ্জ কাফেলা

হজ্জ কাফেলা

আল্লাহ্ তোমার কাছে বিচার দিলাম, নবীর কবর দেখতে পারলামনা’

Capture
হেআল্লাহ্, তোমার কাছে বিচার দেয়া থাকল, তোমার হাবিবের কবর দেখার অনেক ইচ্ছা ছিল, কিন্তু যেতে পারলামনা’ এভাবেই অসহায়ের মতো কান্নাজড়িত কন্ঠে আহাজারি করছিলেন হজে যেতে না পারা এক বয়বৃদ্ধ।
 জীবনের শেষ সঞ্চয় দিয়ে শেষ ইচ্ছাটুকু না পূরণ হওয়ার জন্যেই তার এ আকুতি। অভিভাবকহীন এই মানুষগুলো এখন সবচেয়ে অসহায়ের মতো অবস্থা অনুভব করছে।
ভিসা থাকার পরেও টিকিট সংক্রান্ত জটিলতার কারণে শেষ পর্যন্ত ১২২ জন হজে যেতে পারছেনা বলে নিশ্চিত হয়েছে।
ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে সব ধরনের চেষ্টা করা হলেও শেষ ফ্লাইটে আর কোনো হজ যাত্রীকে বহনের অনুমতি দেয়নি সৌদি এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ।
এ অবস্থায় সংসদীয় কমিটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এবার যারা হজে যেতে পারলেন না আগামীবতে তাদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে।
দায়ী হজ ও ট্রাভেল এজেন্সিগুলোর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান জানালেন কর্তৃপক্ষ। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, হজ এজেন্টদেরকে ধরে
আনতে আমাদেরকে শেষ পর্যন্ত র‌্যাব এর সাহায্য নিতে হয়েছে। যে সমস্ত এজেন্সি এধরনের ভোগান্তির জন্যে দায়ী তাদের লাইসেন্স বাতিলসহ কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ বছর ১ লাখ ২৭ হাজার ৫৯৮ জন হজ যাত্রীর হজে যাওয়ার কথা ছিল। শেষ পর্যন্ত হজে যেতে পেরেছেন ১ লাখ ২৭ হাজার ১০৩ জন।
read more
হজ্জ কাফেলা

হজক্যাম্পে অঝোরে কাঁদছেন ৮১ হজযাত্রী

Capture

কথা রাখলেন না ধর্মমন্ত্রী। ‘কাউকে রেখে হজে যাবো না’ -এমন ঘোষণার পরও অনেক হজযাত্রীর হজে যাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যেই গত শনিবার সন্ধ্যায় সৌদি আরব পাড়ি জমিয়েছেন ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান।এদিকে হজ ফ্লাইট শেষ হয়ে গেছে রোববার দিবাগত মধ্যরাতেই।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

হজক্যাম্পে নেই দায়িত্বশীল কোনো কর্মকর্তাও। কিন্তু সোমবারও ফাঁকা হয়ে যাওয়া ক্যাম্পে দেখা গেলো একদল হজযাত্রীদের। প্রতারণার শিকার হয়ে হজে যেতে না পেরে আশকোনার হজক্যাম্পে এসে অঝোরে কাঁদছেন এমন ৮১ জন হজযাত্রী।

 

 

 

 

 

 

 

এদের একজন স্কুলশিক্ষক নূর আলম। বাড়ি রংপুরের পীরগাছার কল্যানী ইউনিয়নে। চাকরি জীবনের শেষ সম্বল দিয়ে হজে যাবার নিয়ত করেন। টাকা-পয়সা জোগাড় করে ৩ লাখ টাকা তুলে দেন ইকো ট্যুর অ্যান্ড ট্রাভেলসের এক মালিকের হাতে। হজ ফ্লাইটের কথা বলে গত ১৫ আগস্ট তাকে নিয়ে আসা হয় হজক্যাম্পে। এরপর টানা ১২ দিন কেটে গেলেও তাকে আর হজে পাঠানো হয়নি।

সোমবার দুপুরে নূর আলম বলেন, আমি এখন কাউকে খুঁজে পাচ্ছি না। হজ অফিসও ফাঁকা। চাকরি জীবনের সঞ্চিত সব টাকা নিয়ে উধাও হয়েছে দালালচক্র।

 

 

 

 

 

 

 

কুড়িগ্রামের অলিপুর থানা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কাজ করতেন নুরন্নাহার। তিনি সাউথ এশিয়ান ট্রাভেলসের মাধ্যমে হজে যেতে জমা দিয়েছেন ৩ লাখ ২০ হাজার টাকা। এখন ওই ট্রাভেলসের মালিক লাপাত্তা। কাঁদছেন হজক্যাম্পে এসে।

অন্যদিকে, আল সাফা ট্রাভেলসের ১৬ জনের টিকিট নেই বলে শেষ পর্যন্ত যাওয়া হয়নি। ওলামা আউলিয়া ট্রাভেলসের ৭ জনেরও একই দশা।

 

 

 

 

 

হজক্যাম্পে থাকা প্রতারণার শিকার এই ৮১ যাত্রীর অন্যরা সায়েদ আলী ইন্টারন্যাশনাল, আর বালাদ ইন্টারন্যাশনাল, গোল্ডেন এয়ার ইন্টারন্যাশনাল, আল মদিনা ইনারন্যাশনাল প্রভৃতি এজেন্সির মাধ্যমে হজে যেতে টা্কা জমা দিয়েছিলেন।

 

 

 

 

 

 

এদিকে, দুপুর সাড়ে ১২টায় টিকিটবিহীন ভিসা হওয়া এসব হজযাত্রীদের দেখতে আসেন ধর্ম মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি বজলুল হক হারুন। এ সময় তিনি বলেন, আটকে পড়া ৮১ হজযাত্রীকে আজ রাতের সৌদি এয়ারলাইন্সের নিয়মিত ফ্লাইটে পাঠানোর আপ্রাণ চেষ্টা করা হচ্ছে।

 

 

 

 

 

তিনি বলেন, আগের বছরগুলোর তিক্ত অভিজ্ঞতা থেকে আমরা নিয়ম করেছিলাম উড়োজাহাজের ভাড়ার টাকা এজেন্সির কাছে থাকবে না, ব্যাংকে জমা হবে। কিছু ব্যাংকের এ বিষয়ে গাফলতি ছিল। আমরা সমাধান করেছি।

 

 

 

 

 

চলতি বছর হজ কার্যক্রমে স্মরণকালের সবচেয়ে বেশি অব্যবস্থাপনা হয়েছে। প্রাক-নিবন্ধন থেকে শুরু করে প্রতিটি পদে পদে অনিয়ম আর অব্যবস্থাপনা দেখা দিয়েছে। একের পর এক ফ্লাইট বাতিলে এ বছর হজের শিডিউল বিপর্যয় ঘটে। এর মধ্যে গত ১০ আগস্ট বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আলেমদের এক কর্মশালায় ধর্মমন্ত্রী ঘোষণা দেন একজন হজযাত্রীকে বাকি রেখেও তিনি হজে যাবেন না। কিন্তু এর পরও ফ্লাইট বিপর্যয় অব্যাহত থাকে।

 

 

 

 

 

 

সর্বশেষ ভিসা থাকার পরও এজেন্সির প্রতারণায় বিমানের টিকিট না থাকায় হজে যাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তায় থাকা হজযাত্রীরা গত শনিবার দুুপুরে আশকোনা হজ ক্যাম্পে বিক্ষোভ করেন।

 

 

 

 

 

 

তারা জানান, প্রায় তিন শ’ হজযাত্রীর টিকিট দেয়নি সাতটি এজেন্সি। অথচ এ দিনই সন্ধ্যা ৬টায় বাংলাদেশ বিমানের বিজি-৯০৭৯ ফ্লাইটে ১৪ সদস্যের একটি দল নিয়ে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের নেতৃত্বে হজে যান।

read more
হজ্জ কাফেলা

হজ করতে সৌদিতে ১০৪ বছরের মারিয়া

Capture

১০৪ বছরের মারিয়া। বয়সের ভারে নুয়ে পড়লেও অদম্য ইচ্ছাশক্তি বেঁধে রাখতে পারেনি তাঁকে। তাই তল্পিতল্পা গুছিয়ে পবিত্র হজ পালনে ছুটে গেছেন সৌদি আরব।

 

সংবাদমাধ্যম খালিজ টাইমস জানায়, স্থানীয় সময় শনিবার জেদ্দা শহরে পৌঁছান ইন্দোনেশিয়ার বাসিন্দা ইবু মারিয়া মারঘানি মুহাম্মদ। এযাবৎকালে হজ করতে যাওয়া সবচেয়ে বয়স্ক মানুষের মধ্যে একজন বলে ধারণা করা হচ্ছে তাঁকে।

 

জেদ্দার বাদশাহ আবদুল আজিজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছে স্থানীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে মারিয়া বলেন, ‘আল্লাহকে ধন্যবাদ, আমি মক্কায় যাচ্ছি। আল্লাহকে ধন্যবাদ, আমি হজ করতে যাচ্ছি।’

 

এ বিষয়ে সৌদির আন্তর্জাতিক যোগাযোগ বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানান, সৌদি আরব মারিয়াকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানিয়েছে। হজ প্রত্যেক মুসলিমের জীবনে একটি আধ্যাত্মিক বিষয়। ১০৪ বছর বয়সী মারিয়ার জন্য এটি অসাধারণ।

 

আগামী ৩১ আগস্ট সৌদি আরবে অনুষ্ঠিত হবে পবিত্র হজ। দেশটির প্রশাসনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, এরই মধ্যে ১৫ লাখ মুসলিম হজ করতে সৌদি পৌঁছেছেন। হজের জন্য ভিসা দেওয়া হয়েছে কমবেশি ২০ লাখ মুসলিমকে।

 

 

 

 

১০৪ বছরের মারিয়া। বয়সের ভারে নুয়ে পড়লেও অদম্য ইচ্ছাশক্তি বেঁধে রাখতে পারেনি তাঁকে। তাই তল্পিতল্পা গুছিয়ে পবিত্র হজ পালনে ছুটে গেছেন সৌদি আরব।

 

সংবাদমাধ্যম খালিজ টাইমস জানায়, স্থানীয় সময় শনিবার জেদ্দা শহরে পৌঁছান ইন্দোনেশিয়ার বাসিন্দা ইবু মারিয়া মারঘানি মুহাম্মদ। এযাবৎকালে হজ করতে যাওয়া সবচেয়ে বয়স্ক মানুষের মধ্যে একজন বলে ধারণা করা হচ্ছে তাঁকে।

 

জেদ্দার বাদশাহ আবদুল আজিজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছে স্থানীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে মারিয়া বলেন, ‘আল্লাহকে ধন্যবাদ, আমি মক্কায় যাচ্ছি। আল্লাহকে ধন্যবাদ, আমি হজ করতে যাচ্ছি।’

 

এ বিষয়ে সৌদির আন্তর্জাতিক যোগাযোগ বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানান, সৌদি আরব মারিয়াকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানিয়েছে। হজ প্রত্যেক মুসলিমের জীবনে একটি আধ্যাত্মিক বিষয়। ১০৪ বছর বয়সী মারিয়ার জন্য এটি অসাধারণ।

 

আগামী ৩১ আগস্ট সৌদি আরবে অনুষ্ঠিত হবে পবিত্র হজ। দেশটির প্রশাসনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, এরই মধ্যে ১৫ লাখ মুসলিম হজ করতে সৌদি পৌঁছেছেন। হজের জন্য ভিসা দেওয়া হয়েছে কমবেশি ২০ লাখ মুসলিমকে।

read more
হজ্জ কাফেলা

এবার পৃথিবীর সর্ববৃহৎ ছাতা টাঙানো হলো মক্কা-মদিনায় ! দেখুন কেমন হচ্ছে সেই ছাতা …

Capture

সৌদি আরবে পৃথিবীর সর্ববৃহৎ বড় ছাতা টাঙিয়েছে হজ নিরাপত্তা বাহিনী। পবিত্রতম স্থানে হজ যাত্রীদের যাতে সূর্যের উত্তাপ থেকে রক্ষার করা যায়, সে জন্যই ওই ছাতা টাঙানো হয়েছে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।।এই ছাতাগুলো ৫৩.৫৩ মিটারে আচ্ছাদিত করবে মসজিদে সববী। যা পৃথিবীর সবচেয়ে বৃহত্তম ছাতার মর্যাদা দেবে। মসজিদের নিরাপত্তা বাহিনীর কমান্ডার জেনারেল মোহাম্মদ আহম্মদী বলেন, ‘এয়ার কন্ডিশনারের জন্য মসজিদের তাপমাত্রা খুব কম। এই ছাতাগুলো হজ যাত্রীদের রোদ থেকে বাঁচাবে।’

 

 

 

 

 

 

 

আগত মুসলিমদের সেবায় বাদশাহ সালমান ও সরকার কর্তৃক আয়োজিত মহান প্রচেষ্টার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে হজ যাত্রীরাও। মক্কা ও মদিনায় হজ যাত্রীদের জন্য বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা ও ক্রমবর্ধমান উন্নয়নের জন্য বিশেষভাবে প্রশংসিত হয় তারা

 

 

 

 

 

 

হজ পালন করতে আসা সুদানের নাগরিক মারজুক আব্দুল্লাহ বলেন, ‘মদিনায় হজ যাত্রীদের সেবায় পূর্বের তুলনায় একটি অভিনব পরিবর্তন লক্ষ্য করেছি আমরা।’

 

 

 

 

 

 

নবী (সঃ) এর মসজিদ ও তার নিক

টবর্তী এলাকার পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ও ঠান্ডা জমজম কূপের পানি সরবরাহের ব্যবস্থার প্রশংসা করলেন ক্যামেরুন থেকে আসা মোহাম্মদ কানো।

 

 

 

 

ভারত থেকে আসা মাগদা দিয়া মক্কার অভিবাদন প্রক্রিয়ার বেশ প্রশংসা করেছেন। তিনি বলেন, ‘এই দেশ, দেশের জনগণ ও কর্তৃপক্ষ খুবই ভালো। তাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা খুবই ভালো। আমি যখন হারিয়ে গিয়েছিলোম তারা আমার পরিবারকে খুঁজে পেতে সহায়তা করেছে। তারা তাদের সুষ্ঠু চিকিৎসা সম্পর্কে আমাকে আশ্বস্ত করেছেন

 

 

 

 

 

 

read more
হজ্জ কাফেলা

হজে যেতে না পারায় কান্নার রোল হজ ক্যাম্পে

Capture

এজেন্সিগুলোর প্রতারণার শিকার হয়ে অনেক হজযাত্রী এ বছর হজে যেতে পারছেন না। আবার হজে যাওয়ার পরও সৌদিতে গিয়ে নানা সমস্যায় পড়ছেন। যাদের বিমানের টিকিট কাটা বাকি রয়েছে, যাদের হজে যাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। ভিসা হওয়ার পরও টিকিট না কাটা হয়নি অনেকের। দিনের পর দিন ঘুরেও হজে যেতে না পারায় কান্নার রোল পড়েছে হজ ক্যাম্পে। চুক্তি অনুযায়ী সব টাকা পরিশোধের পরও তাদের ঘুরতে হচ্ছে এজেন্সি ও দালালদের দ্বারে দ্বারে।

 

 

 

 

হজ অফিস সূত্রে জানা যায়, এ বছর বাংলাদেশ থেকে মোট ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজে যাচ্ছেন। কিন্তু গতকাল পর্যন্ত ১ লাখ ৬ হাজার হজযাত্রী সৌদি আরব পৌঁছেছেন। ফলে এখনো ২১ হাজার হজযাত্রী সৌদি আরব যাওয়া বাকি রয়েছে। আগামীকাল ২৬ আগস্ট পর্যন্ত বাংলাদেশ বিমানের এবং ২৭ আগস্ট পর্যন্ত সৌদি এয়ারলাইন্সের ফাইট রয়েছে। এ দু-তিন দিন বাকি হজযাত্রী পরিবহন করতে হিমশিম খাচ্ছে দু’টি এয়ারলাইন্স।

 

 

 

 

এ দিকে ভিসা হওয়ার পরও এখনো অনেক হজযাত্রীর টিকিট কাটেনি হজ এজেন্সিগুলো। হজ অফিসে গত ২২ আগস্ট পর্যন্ত এক হিসাবে জানা যায়, প্রায় ১২ হাজার হজযাত্রীর বিমান টিকিট কাটেনি এজেন্সিগুলো। এর মধ্যে ৫৭টি এজেন্সির ১০ হাজার ১১ জন হজযাত্রীর মধ্যে মাত্র এক হাজার ২০৭ জনের টিকিট কাটে। আর ১৭টি এজেন্সির তিন হাজার হজযাত্রীর জন্য কোনো টিকিটই কাটেনি।

 

 

 

 

এজেন্সিগুলোকে ভিসাপ্রাপ্ত সব হজযাত্রীকে টিকিট নিশ্চিত করে জরুরি ভিত্তিতে সৌদি আরব পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে হজ অফিস। অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে লাইসেন্স বাতিল ও জামানত বাজেয়াপ্ত করাসহ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে।

 

 

 

 

এজেন্সিগুলোর প্রতারণার শিকার হয়ে অনেক হজযাত্রী এ বছর হজে যেতে পারছেন না। আবার হজে যাওয়ার পরও সৌদিতে গিয়ে নানা সমস্যায় পড়ছেন।

 

 

 

যাদের বিমানের টিকিট কাটা বাকি রয়েছে, যাদের হজে যাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। ভিসা হওয়ার পরও টিকিট না কাটা হয়নি অনেকের। দিনের পর দিন ঘুরেও হজে যেতে না পারায় কান্নার রোল পড়েছে হজ ক্যাম্পে। চুক্তি অনুযায়ী সব টাকা পরিশোধের পরও তাদের ঘুরতে হচ্ছে এজেন্সি ও দালালদের দ্বারে দ্বারে।

 

 

 

 

হজ অফিস সূত্রে জানা যায়, এ বছর বাংলাদেশ থেকে মোট ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজে যাচ্ছেন। কিন্তু গতকাল পর্যন্ত ১ লাখ ৬ হাজার হজযাত্রী সৌদি আরব পৌঁছেছেন।

 

 

 

ফলে এখনো ২১ হাজার হজযাত্রী সৌদি আরব যাওয়া বাকি রয়েছে। আগামীকাল ২৬ আগস্ট পর্যন্ত বাংলাদেশ বিমানের এবং ২৭ আগস্ট পর্যন্ত সৌদি এয়ারলাইন্সের ফাইট রয়েছে। এ দু-তিন দিন বাকি হজযাত্রী পরিবহন করতে হিমশিম খাচ্ছে দু’টি এয়ারলাইন্স।

 

 

 

 

এ দিকে ভিসা হওয়ার পরও এখনো অনেক হজযাত্রীর টিকিট কাটেনি হজ এজেন্সিগুলো। হজ অফিসে গত ২২ আগস্ট পর্যন্ত এক হিসাবে জানা যায়, প্রায় ১২ হাজার হজযাত্রীর বিমান টিকিট কাটেনি এজেন্সিগুলো।

 

 

 

এর মধ্যে ৫৭টি এজেন্সির ১০ হাজার ১১ জন হজযাত্রীর মধ্যে মাত্র এক হাজার ২০৭ জনের টিকিট কাটে। আর ১৭টি এজেন্সির তিন হাজার হজযাত্রীর জন্য কোনো টিকিটই কাটেনি।

 

 

 

এজেন্সিগুলোকে ভিসাপ্রাপ্ত সব হজযাত্রীকে টিকিট নিশ্চিত করে জরুরি ভিত্তিতে সৌদি আরব পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে হজ অফিস।

 

 

অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে লাইসেন্স বাতিল ও জামানত বাজেয়াপ্ত করাসহ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে।

 

 

 

 

read more
হজ্জ কাফেলা

হাজিদের নিরাপত্তায় একি করছে সৌদি! দেখলে গা শিউরে উঠবে আপনার (ভিডিও সহ)

Capture

হাজিদের নিরাপত্তায় একি করছে সৌদি! দেখলে গা শিউরে উঠবে আপনার (ভিডিও সহ)

 

 

হাজিদের নিরাপত্তায় একি করছে সৌদি! দেখলে গা শিউরে উঠবে আপনার (ভিডিও সহ)

 

 

 

ভিডিওটি দেখুন নিচে…

 

 

 

 

 

 

 

 

 

অন্নরা যা পড়ছেন……

 

মাইলফলক স্পর্শ করার টেস্টকে স্মরণীয় করে রাখতে চান তামিম, জেতাতে চান দলকে। তামিম বলেন, “পঞ্চাশ নম্বর টেস্ট অবশ্যই বিশেষ কিছু। সেটা আমার জন্য এবং সাকিবের জন্যও। আমরা দু’জন যদি ভালো কিছু করতে পারি আর দল স্মরণীয় সাফল্য পায়। তাহলে আমাদের ক্যারিয়ারের পঞ্চাশতম টেস্ট অবিস্মরণীয় হয়ে থাকবে। সাফল্যের সোনালী হরফে লেখা হবে এই ম্যাচের কথা। কিন্তু আমরা তেমন কিছু করতে না পারলে শুধু সংখ্যা হয়েই থাকবে এ ম্যাচ।”

 

 

 

ক্যারিয়ারের উত্থান পতন ছিলো তামিমের। টেস্ট ফরম্যাটে খুব অনিয়মিতও বাংলাদেশ। একসময় তাই ভাবনাতেই ছিলো না এসব মাইলফলক। তামিম বলেন, “সত্যি কথা, ওরকম কোনো নম্বর মাইন্ডে ছিল না। যখন টেস্ট ক্রিকেট শুরু করি, আমার অভিষেক হয়, ইচ্ছা ছিল যেন লম্বা সময় ধরে বাংলাদেশ দলের জন্য খেলতে পারি। ওটাই লক্ষ্য ছিল। আলাদা কোনো নম্বর মাথায় ছিল না। একটা সময় এমন লাগছিল, যেভাবে আমরা টেস্ট খেলছিলাম ৫০টা টেস্ট খেলতে পারব কি পারব না, তাও সন্দেহ ছিল।”

 

 

 

তামিম আরো যোগ করেন, “এখন আমাদের অনেক ম্যাচ বেড়েছে, আগের তুলনায় বেশি ম্যাচ খেলছি। ফলে এখন থেকে যাদের অভিষেক হবে, তাদের জন্য নম্বর ঠিক করা সহজ হবে। আমরা গত দুই বছরে খুব কম টেস্ট ম্যাচ খেলেছি। এই একটা ফরম্যাট; যে ফরম্যাটে আমাদের এখনও অনেক উন্নতি করার বাকি আছে। আমার কাছে মনে হয়, এক থেকে দেড় বছর সঠিক সময়। এই ফরম্যাটে নিজেদের ভালো দল হিসেবে গড়তে।”

 

 

 

প্রসঙ্গত, এখন পর্যন্ত সাদা পোশাকে ৪৯টি করে ম্যাচ খেলেছেন সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবাল। আগামী ২৭ আগস্ট অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। সেদিনই ৫০ টেস্ট খেলার মাইলফলক স্পর্শ করবেন এই দু’জন। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এর আগে কখনও টেস্ট খেলেননি সাকিব-তামিম।

 

 

 

 

 

read more
হজ্জ কাফেলা

বিমানে নেয় না, সীমান্তপথে হজে যাচ্ছেন কাতারিরা

Capture

পবিত্র হজ পালনের জন্য সীমান্তপথে সৌদি আরব ঢুকছেন কাতারের হজযাত্রীরা। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত কাতারের প্রায় ৭০০ হজযাত্রী সৌদি আরবে প্রবেশ করেছেন।

 

 

 

 

আল আরাবিয়া জানিয়েছে, স্যালওয়া সীমান্ত দিয়ে কাতারের হজযাত্রীরা সৌদি আরবে ঢুকছেন। স্যালওয়া সীমান্তে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কর্নেল হাসান আল-দোসারি জানান, সীমান্তপথে কাতারের হজযাত্রী প্রবেশের সংখ্যা উল্লেখজনক হারে বাড়ছে।

 

 

 

 

আস রাক আল-আওসাত নামে এক সংবাদপত্র জানায়, কাতার কর্তৃপক্ষ সৌদি এয়ারলাইন্সের বিমানগুলোকে তাদের দেশ থেকে হজযাত্রীদের নিতে দিচ্ছে না। এই ঘটনার পর থেকেই ওই সীমান্ত দিয়ে প্রবেশ বাড়ছে কাতারিদের।

 

 

 

একই সীমান্তের কাস্টমসের দায়িত্বে নিয়োজিত জেনারেল ম্যানেজার ওসমান আল ঘামদি জানান, কাতারি হজযাত্রীদের জন্য বোর্ডিং ব্যবস্থা করা হয়েছে।

 

 

 

কাতারি হজযাত্রীরা সৌদি আরবে প্রবেশ করতে পেরে বেশ আনন্দিত। তাঁরা বলেন, সীমান্তের সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে কোনো ধরনের বাধা ছাড়াই সৌদি আরবে প্রবেশ করছেন।

 

 

 

গত জুনে কাতারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে সৌদি আরবসহ বেশ কয়েকটি মুসলিম রাষ্ট্র

 

 

 

 

 

পবিত্র হজ পালনের জন্য সীমান্তপথে সৌদি আরব ঢুকছেন কাতারের হজযাত্রীরা। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত কাতারের প্রায় ৭০০ হজযাত্রী সৌদি আরবে প্রবেশ করেছেন।

 

আল আরাবিয়া জানিয়েছে, স্যালওয়া সীমান্ত দিয়ে কাতারের হজযাত্রীরা সৌদি আরবে ঢুকছেন। স্যালওয়া সীমান্তে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কর্নেল হাসান আল-দোসারি জানান, সীমান্তপথে কাতারের হজযাত্রী প্রবেশের সংখ্যা উল্লেখজনক হারে বাড়ছে।

 

আস রাক আল-আওসাত নামে এক সংবাদপত্র জানায়, কাতার কর্তৃপক্ষ সৌদি এয়ারলাইন্সের বিমানগুলোকে তাদের দেশ থেকে হজযাত্রীদের নিতে দিচ্ছে না। এই ঘটনার পর থেকেই ওই সীমান্ত দিয়ে প্রবেশ বাড়ছে কাতারিদের।

 

একই সীমান্তের কাস্টমসের দায়িত্বে নিয়োজিত জেনারেল ম্যানেজার ওসমান আল ঘামদি জানান, কাতারি হজযাত্রীদের জন্য বোর্ডিং ব্যবস্থা করা হয়েছে।

 

কাতারি হজযাত্রীরা সৌদি আরবে প্রবেশ করতে পেরে বেশ আনন্দিত। তাঁরা বলেন, সীমান্তের সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে কোনো ধরনের বাধা ছাড়াই সৌদি আরবে প্রবেশ করছেন।

 

গত জুনে কাতারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে সৌদি আরবসহ বেশ কয়েকটি মুসলিম রাষ্ট্র

read more