close

বিদেশ

বিদেশ

দেখুন কোন দেশের মানুষ সর্বস্বান্ত হচ্ছেন ((বিস্তারিত দেখুন))

Untitled-1 copy

বাংলাদেশিরা সর্বস্বান্ত হচ্ছেন সিঙ্গাপুরে

প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখ টাকা খরচ করে ২০১২ সালে সিঙ্গাপুরে কাজ করতে যান মুন্সিগঞ্জের ইলিয়াস আলী। চাকরির মেয়াদ ছিল এক বছর। যে কোম্পানিতে মামুন কাজ করতেন, মেয়াদ শেষে সেখানে আর কাজ না থাকায় তার চাকরি নবায়ন হয়নি। ফলে দেশে ফিরে আসেন তিনি। কিন্তু যে পাঁচ লাখ টাকা খরচ করে তিনি সিঙ্গাপুরে কাজ করতে গেলেন, চাকরি করে আর্থিক উন্নতি করা তো দূরের কথা, বিদেশ যাওয়া খরচের টাকাও পুরোপুরি উঠিয়ে আনতে পারেননি ।

 

 

এরপর আবারও কিছুদিন পর তিন লাখ টাকা খরচ করে সিঙ্গাপুরে কাজ করতে গেলেন ইলিয়াস। এবার অবশ্য এক বছর পরই বিশেষ শর্ত সাপেক্ষে চাকরি নবায়নের সুযোগ পেলেন তিনি। শর্তটি হলো- চাকরি নবায়ন করার জন্য কোম্পানিকে এক হাজার ডলার দিতে হবে।

আরও খবর : বন্দি প্রবাসীদের মুক্তি মিলছে না

 

 

 

 

কিন্তু দু:খের বিষয় হচ্ছে এই নবায়ন ফি ইলিয়াসের দুই মাসের বেতনের সমপরিমাণ। এই প্রবাসীর জানান, সিঙ্গাপুরে চাকরি নবায়নের জন্য কোম্পানিকে কোনো ফি দেওয়ার নিয়ম না থাকায় কোম্পানিগুলো কিছুটা কৌশলের আশ্রয় নেয়। তারা কাগজে-কলমে দেখায় সেই কর্মীটি কোম্পানির কাছ থেকে নবায়ন ফি’র সমপরিমাণ ঋণ নিয়েছে। চাকরি নবায়নের পরে ওই বেতন থেকে ওই পরিমাণ অর্থ কেটে রাখা হয়।

এভাবে বারবার কর্মীদের চাকরির মেয়াদ নবায়নের ফি নিয়ে থাকে কোম্পানি। কোম্পানির এই অসৎ উদ্দেশ্য বুঝতে পেরেও কর্মীরা সেখানে কাজ করতে বাধ্য থাকে।

 

 

 

কারণ, এক কোম্পানি ছেড়ে অন্য আরেক কোম্পানিতে কাজ করতে গেলে সে ক্ষেত্রে নবায়ন ফি’র দুই-তিন গুণ বেশি টাকা খরচ হবে। আবার চাকরি ছেড়ে দেশে ফিরে আসলেও কোনো লাভ নেই।

যে টাকা খরচ করে সে সিঙ্গাপুরে গিয়েছে, সেই টাকা উঠিয়ে আনতে পারবে না। অন্যদিকে, বাংলাদেশি শ্রমিকরা যাতে চাকরির মেয়াদ নবায়ন ফি নেওয়ার কারণে কোম্পানির বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ করতে না পারে সেজন্য কোম্পানিগুলো আগেই ঋণ নামক ছলচাতুরীর আশ্রয় নেয়।

 

 

 

শ্রমিকরা জানান, কেউ যদি অভিযোগ করে যে কোম্পানি তার কাছ থেকে চাকরির মেয়াদ নবায়নের জন্য ফি নিয়েছে, সেক্ষেত্রে কোম্পানিগুলো কাগজে-কলমে দেখায় যে ওই শ্রমিক কোম্পানির কাছ থেকে ঋণ নিয়েছিল।

read more
বিদেশ

দারিদ্র্য পরিবারের ছেলে গেইল, ছোট বেলায় যা করতেন জানলে অবাক হবেন!

Untitled-1 copy

 

ক্রিকেট বিশ্বে প্রতিনিয়ত নিজের ধ্বংসাত্মক রুপ দেখাচ্ছেন জ্যামাইকান রাজকুমার ক্রিস গেইল। আজব দানবীয় মানুষটি ক্রিকেট বিশ্বকে অনেক চমক দিয়েছেন, দিচ্ছেন। তিন ফরম্যাট ক্রিকেটে রয়েছে তার শ্রেষ্ঠত্বের দাবিদার।

এবার সেই ক্রিকেট জীবনেকে স্মরণীয় করে রাখতে সম্প্রতি তিনি প্রকাশ করেছেন তার আত্মজীবনী ‘’Six Machine’ ।

বইটির শুরুতেই গেইল লিখেছেন, আমি এক ‘আজব’ মানুষ। বইটি পড়লে আমাকে এবং ক্রিকেট বিশ্বের বিভিন্ন বিষয় জানতে পারবেন।

আজকের দিনে গেইল কোটি টাকার মালিক হলেও দারিদ্র্য পরিবারের সন্তান ছিলেন তিনি। দারিদ্র্য পরিবার থেকে বের হতে আসতে তাকে পার করতে হয়েছে নানা চড়াই-উৎরাই।

তিনি যখন স্কুলে যেতেন তখন টিফিনের সময় দেখতেন সবাই বাসা কিংবা বাইর থেকে খাবার নিয়ে আসতো। কিন্তু তার ভাগ্যে সেটি কখনই জোটেনি।

এর জন্য তাকে বাধ্য হয়ে করতে হয়েছে চুরি। গেইল যে স্কুলে পড়াশোনা করতেন, সে স্কুলের পাশেই ক্রিকেট মাঠ ছিল। টিফিনের সময় হলে গেইল তার অন্য বন্ধুদের নিয়ে পাশের দোকানে পানির বোতল চুরি করতেন। তারপর সেটি বিক্রি করে যা পেতেন তা দিয়ে রুটি-মিষ্টি খেয়ে টিফিন সেরে নিতেন।

 

read more
বিদেশ

তুরস্কে কুরআন তেলাওয়াত করে স্বর্ণপদক পেল বাংলাদেশি এই যুবক, বিস্তারিত

Untitled-1 copy

 

তুরস্কের আঙ্কারা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত বাংলাদেশের মেধাবী ছাত্র সাইয়েদ রাশেদ হাসান চৌধুরী কোরআন তেলাওয়াত করে স্বর্ণপদক পেয়েছেন। শনিবার তুরস্কের খিরশেহরিতে ওসমানী সালতানাতের ধর্মীয় ও সংস্কৃতিতে প্রত্যাবর্তন শীর্ষক অনুষ্ঠানে তাকে স্বর্ণপদক দেয়া হয়।

মেধাবী এ ছাত্রকে ওই অনুষ্ঠানে কোরআন তেলাওয়াতের জন্য তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারা থেকে বিশেষভাবে আমন্ত্রণ জানানো হয়। অনুষ্ঠানে তিনি কোরআন তেলওয়াত করেন। উপস্থিত সবাই তার তেলাওয়াত শুনে মুগ্ধ হন।

অনুষ্ঠানে দেশটির সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তা ও বিভিন্ন রাজনীতিক দলের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও তাকে তুরস্কের খিরশেহরির কেন্দ্রীয় মসজিদে জুমার নামাজে আমন্ত্রণ জানানো হয়। সেখানে তিনি নামাজের পূর্বে ও পরে কোরআন তেলাওয়াত করেন।

সাইয়েদ রাশেদ হাসান চৌধুরী লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলার মাতাব্বর নগর মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ও উপজেলা ইমাম সমিতির সভাপতি মাওলানা আলী হোসেনের ছেলে।

 

তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তরে অনবদ্য ফলাফলের জন্য ডিন’স মেরিট লিস্ট অফ অনার অ্যাওয়ার্ড ডিগ্রি অর্জন করেন। পরে তুরস্ক সরকারের স্কলারশিপে আঙ্কারা বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চ শিক্ষার জন্য মনোনীত হন।

 

 

এছাড়া তিনি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কনফারেন্সে নিজের গবেষণামূলক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেছেন। ইতিমধ্যে তুরস্ক, সাইপ্রাস, পোল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস ও হাঙ্গেরিতে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন জার্নালে তার গবেষণাকর্ম প্রকাশিত হয়েছে।

সূত্র: নয়াদিগন্ত

read more
বিদেশ

আগে পাকিস্তানকে দু’টুকরো করেছি, এবার চার টুকরো করার সময় এসেছে><><

Untitled-1 copy

 

জম্মু-কাশ্মীরে অতর্কিত আক্রমণে প্রাণ হারিয়েছেন বিএসএফ সদস্য মহম্মদ রমজান। আর তারপরই পাকিস্তানের দিকে চরম হুঁশিয়ারি ছুড়ে দিলেন সিনিয়র বিজেপি নেতা ও সাংসদ সুব্রহ্মণ্যম স্বামী। তিনি বলেন, এক সময় পাকিস্তানকে দু’ টুকরো করেছি, এবার চার টুকরো করার সময় এসেছে।

ছুটিতে নিজের বাড়িতে এসেছিলেন বিএসএফ জওয়ান মহম্মদ রমজান। সেখানেই জওয়ানের উপর হামলা চালায় জঙ্গিরা। এর আগেও এই ধরনের ঘটনা ঘটেছে। সরাসরি জওয়ানদের সঙ্গে না পেরে, এই ছুটির সময়টাকেই বেছে নেয় হামলাকারীরা। পরিবারের সঙ্গে যখন সময় কাটান জওয়ানরা, তখন পরিবারের উপর হামলা চালায়। বাধা দিতে এলে জওয়ানকে খুন করা হয়।

ঠিক একই ছকে মারা হয়েছে মহম্মদ রমজানকে। উত্তর কাশ্মীরের আইজি নীতীশ কুমার জানাচ্ছেন, প্রথমে ছুরি নিয়ে জঙ্গিরা রমজানের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। তারপর এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে থাকে। গোটা দেশ যখন উৎসবে মশগুল, তখন পরিবারের সঙ্গে আনন্দের মুহূর্তগুলো আর কাটানো হল না জওয়ানের। শহিদ হলেন তিনি। এ সময় তার তিন আত্মীয়ও গুলিবিদ্ধ হন। তবে এ নিয়ে স্রেফ কান্নাকাটি করে কোনও লাভ নেই, এমনটাই বললেন বিজেপি নেতা সুব্রহ্মণ্যম স্বামী। তাঁর সাফ কথা, একসময় ভারতই পাকিস্তানকে ভেঙে দু টুকরো করেছিল। এবার ওই দেশকে ভেঙে চার টুকরো করার সময় এসেছে।

এমনিতেই রাষ্ট্রসংঘে মুখ পুড়েছে পাকিস্তানের। সুষমা স্বরাজের চাঁচাছোলা আক্রমণের পর ভারতকে বিপাকে ফেলতে গিয়ে গাজার ছবি দেখিয়েছে পাকিস্তান। তাতে আরও বিদ্রুপের মুখে পড়েছে প্রতিবেশী দেশ। এদিকে প্রয়োজন হলে পাকিস্তানে ফের সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করা হতে পারে বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ভারতের সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত। সেই একই হুমকির সুর শোনা গেল বিজেপি সাংসদ স্বামীর কথাতেও।

সূত্র: ভারতীয় পত্রিকা

read more
বিদেশ

মালয়েশিয়ার কে,এলে পেট্রল পাম্পে ডাকাতির সময় বাংলাদেশিকে গুলি করা সেই মালয়েশীয় নাগরিকের ফাঁসির আদেশ

Untitled-1 copy

 

বাংলাদেশিকে গুলি এবং ডাকাতির অপরাধে মালয়েশিয়ার সাবেক এক নিরাপত্তারক্ষীর ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন দেশটির আদলত। বুধবার উচ্চ আদালতের বিচারক দাতুক আযমান আবদুল্লাহ এ রায় ঘোষণা করেন।

এর আগে, ২০১৬ সালের ৭ আগস্ট কুয়ালালামপুরের একটি ফিলিং স্টেশনে হামলা চালায় ডাকাত দল। সেখানে কর্মরত বাংলাদেশি শ্রমিক মো. তারিকুল ইসলাম তারেক বাঁধা দিলে তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ে ডাকাতরা।

ডাকাত যখন ক্যাশ থেকে টাকা নিতে যায় তখন অপর বাংলাদেশি তরিকুল ইসলাম (২৩) তাকে পেছন দিক থেকে জাপটে ধরে। তখন ডাকাত পর পর তিনটি গুলি করে।

একটা গুলি তরিকুলের ঊরুতে লাগে, বাকি দুটোর একটি সিলিংয়ে এবং অপরটি বিল্ডিঙের শেলফে লাগে। শ্রমিক খালিদ আবদুল্লাহ (৩৪) সিকিউরিটি বাটনে চাপ দেয়। ঘটনার ১৫ মিনিট পর পুলিশ আসে এবং ডাকাতকে থানায় নিয়ে যায়।

তখন, পেটে গুলি লেগে মারাত্মকভাবে আহত হন তারেক। পরে জানা যায়, তারেকের ওপর যে গুলি চালিয়েছে তিনি ফাইরল আযমান রনযুকি নামের ৩৩ বছর বয়সী মালয়েশিয়ার নিরাপত্তারক্ষী। পরে, ফৌজদারি আইনের ১৯৭১ এর ৩ ধারার অধীনে দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় সাবেক এ নিরাপত্তারক্ষীকে সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে।

read more
বিদেশ

মালয়েশিয়ায় প্রবাসি বাংলাদেশীর হাতে অারেক বাংলাদেশী খুন (ভিডিওসহ)…….

Untitled-1 copy

 

মালয়েশিয়ার সেলাঙ্গুরের শাহ আলম শেকসন ২৭ এলাকা থেকে এক বাংলাদেশীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। হত্যায় জড়িত সন্দেহে আটক করা হয়েছে বেশ কয়েকজনকে।

 

পুলিশ জানায়, নিহত বাংলাদেশির নিয়োগদাতা (বস্) ২৫ সেপ্টেম্বর সোমবার স্থানীয় একটি পুলিশ স্টেশনে নিখোঁজের বিষয়ে প্রতিবেদন দাখিলের পর তদন্ত শুরু হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় এক বাংলাদেশি ব্যবসায়ীসহ কয়েকজনকে আটক করা হলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে খুনের বিষয়টি বেরিয়ে আসে।

 

পরে শাহ আলম এলাকার একটি নর্দমা থেকে এই বাংলাদেশীর খন্ডিত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ব্যবসা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে এ হত্যাকান্ড ঘটানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

এখনও হত্যায় ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধার করা যায়নি এবং নিহত শ্রমিকের পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি।

 

 

 

read more
বিদেশ

রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে বাংলাদেশকে যে সুসংবাদ দিল জাপান

Untitled-1 copy

 

 

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে নির্যাতিত সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলমানদের সংকটের বিষয়ে উদ্বেগ জানিয়েছে জাপান। এ সংকট সমাধানে দেশটি বাংলাদেশের পাশে থাকার অঙ্গীকার জানিয়েছে।

আজ বুধবার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের সঙ্গে এক প্রাতঃরাশ বৈঠক শেষে জাপানের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী আইওয়াও হরি এ আশ্বাস দেন।

 

শাহরিয়ার আলম জানান, বৈঠকে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এসময় কফি আনান কমিশনের রিপোর্ট বাস্তবায়ন ও শরণার্থী সমস্যার টেকসই সমাধানে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশ জাপানকে পাশে চায় বলে আইওয়াও হরিকে জানান তিনি।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, জাপানের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন। এর আগে বুধবার সকালে ঢাকায় পৌঁছান জাপানের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী আইওয়াও হরি।

এরপর তিনি পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম ও পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হকের সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে রোহিঙ্গা ইস্যু ছাড়াও দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন ইস্যুতে আলোচনা করেন।

বাংলাদেশ সফরের আগে আইওয়াও হরি মিয়ানমার সফর করেন। সেখানে তিনি সুচির সরকার ও দেশটির সামরিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন।

তিনি রাখাইন রাজ্যও সফরে গেছেন। সেখানে অভ্যন্তরীণ বাস্তুচ্যুতদের ক্যাম্প (আইডিপি ক্যাম্প) পরিদর্শন করেছেন। রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে জাপান খুবই সতর্ক অবস্থানে আছে।

 

তারা কফি আনান কমিশনের রিপোর্ট বাস্তবায়ন করার পক্ষে অবস্থান ব্যক্ত করলেও তেমন কিছুই বলেনি। তবে রোহিঙ্গাদের জন্য জাপান ত্রাণ সহায়তা দিচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সীমান্তরক্ষী পুলিশের সঙ্গে রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের সংঘর্ষ হয়। একে ঘিরে দেশটির সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের গ্রামগুলো লক্ষ্য করে বিতাড়ন অভিযান শুরু করে।

এ অভিযানকালে সেনারা নির্বিচারে হত্যা-ধর্ষণ-নির্যাতন শুরু করায় প্রাণ বাঁচাতে অন্তত চার লাখ ৩০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। অন্যদিকে রাখাইনে নিহত হয়েছে তিন হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা।

জাতিসংঘ মিয়ানমার সেনাবাহিনীর এ অভিযানকে জাতিগত নিধন হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। বাংলাদেশ ও ফ্রান্সসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ মিয়ানমারের বিরুদ্ধে রাখাইনে গণহত্যা চালানোর অভিযোগ করেছে।

read more
বিদেশ

আবারো ‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’, পাকিস্তানকে হুঁশিয়ারি করলো ভারত !

Untitled-1 copy

 

 

ফের ‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’-এর মতো হামলা চালিয়ে পাকিস্তানকে শিক্ষা দিতে পারে ভারত! এই ভাষাতেই প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানকে সতর্ক করল ভারতের সেনাপ্রধান।

 

ভারতের সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত বলেন, সীমান্তের ওপার থেকে সন্ত্রাসে মদত দেওয়া বন্ধ না করলে পাকিস্তানকে উচিত শিক্ষা দেওয়ার মতো প্রয়োজনীয় সামরিক সম্ভার এবং বিকল্প ভারতের হাতে রয়েছে।

 

ঠিক যেভাবে এক বছর আগে ‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’ চালিয়েছিল ভারতীয় সেনা, ঠিক একই কায়দায় ভারতীয় সেনা আরও অভিযান চালাতে প্রস্তুত বলেই পাকিস্তানকে হঁশিয়ারি দিয়েছেন রাওয়াত। সীমান্ত পেরিয়ে এদেশে অনুপ্রবেশকারী সেনাদের যথাযথ ‘আপ্যায়ণ’ এবং ‘মাটির আড়াই ফুট নীচে পুঁতে দেওয়ার মতো’ শক্তিশালী বাহিনী এবং সামরিক অস্ত্র ভারতের হাতে রয়েছে বলেই জানিয়েছেন আত্নবিশ্বাসী সেনাপ্রধান।

 

 

 

রাওয়াত আরও দাবি করেন, পাক সেনা এবং আইএসআই যৌথভাবে জঙ্গিদের সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে অনুপ্রবেশে সাহায্য করছে। সেনাপ্রধানের কথা, আমরা তৈরি আছি। সীমান্তের ওপার থেকে জঙ্গিরা এসেই চলেছে। আর আমরা তাদের স্বাগত জানানোর জন্য বসে আছি। ওদের যথাযথ আপ্যায়ণ জানিয়ে মাটির আড়াই ফুট নীচে পাঠিয়ে দিচ্ছি। খবর এবেলার।

read more
বিদেশ

রোহিঙ্গাদের সাথে সাথে নতুন করে বাঙ্গালিদের উপর হামলা চালাচ্ছে বি জি পি

Capture

 

 

মিয়ানমারে চলমান সহিংসতায় হাজার হাজার রোহিঙ্গা মুসলিম বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে। এ পর্যন্ত প্রায় ছয় লাখ রোহিঙ্গা মুসলিম বাংলাদেশে এসেছে। গত ২৫ আগস্ট রাতে রাখাইনে কয়েকটি পুলিশ ফাঁড়ি ও তল্লাশিচৌকিতে সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয়। ওই হামলার জেরে রাখাইন রাজ্যে নতুন করে সেনা অভিযান শুরু হয়। মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী নিরস্ত্র রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশুদের ওপর নির্যাতন ও হত্যাযজ্ঞ চালাতে থাকে।

 

তবে এবার বাংলাদেশিদের উপর হামলা চালাচ্ছে মিয়ানমারের বাহিনী। সমকালের সংবাদের বরাতে এর বিস্তারিত তুলে ধরা হলো।

সাগরের বুকে মাছ ধরছিল ওরা। হঠাৎ গুলি করতে করতে জেলে নৌকাটি থামিয়ে তাতে উঠে এলো মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি)। প্রচন্ড মারধর করতে লাগল বাংলাদেশি জেলেদের। পিটিয়ে ভেঙে ফেলল মো. সাদ্দামের (২৬) দুই হাত ও দুই পা। রাইফেল দিয়ে আঘাত করতে করতে তার মাথা ফাটাল। প্রচুর রক্তপাতে জ্ঞান হারিয়ে ফেললেন সাদ্দাম। তাকে সাগরের বুকে ফেলে দিল বিজিপি সদস্যরা। উত্তাল সাগরে সঙ্গে সঙ্গে ডুবে গেলেন সাদ্দাম।

 

 

এবার জেলেদের দিকে ফিরে সরাসরি গুলি চালাতে লাগল ওরা। আতঙ্কিত জেলেরা সবাই ঝাঁপিয়ে পড়লেন সাগরের বুকে। তাদের মধ্যে কবীর আহম্মেদ ও মোহাম্মদ হোসেন সাঁতরে নাফ নদের অনেকটা ভেতরে চলে আসতে পারেন। পরে একটি জেলে নৌকা উদ্ধার করে তাদের। গত সোমবার বিকেল ৪টার দিকে এ ঘটনা ঘটেছে বঙ্গোপসাগর ও নাফ নদের মোহনা নাইক্ষ্যংদিয়াতে।

 

এভাবে মিয়ানমারের বিজিপি সদস্যরা এবার অত্যাচার-নির্যাতন শুরু করেছে নিরীহ বাংলাদেশি জেলেদের ওপর। গত তিন দিনে কমপক্ষে ৬টি জেলে নৌকার ওপর গুলি চালিয়েছে তারা।

গত সোমবারের ঘটনায় নিহত যুবক সাদ্দাম টেকনাফ শহরের দক্ষিণ জালিয়াপাড়ার বাসিন্দা। গতকাল মঙ্গলবার সকালে তার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, স্বজনরা কাঁদছেন। সাদ্দামের দুটি শিশুসন্তান তখনও বুঝতে পারেনি কী ঘটেছে। তারা তাদের বাবার জন্য অপেক্ষা করছিল।

প্রত্যক্ষদর্শীর কথা: নিষ্ঠুরতার শিকার ওই নৌকা থেকে পালিয়ে আসা যুবক কবীর আহম্মেদের সঙ্গে গতকাল মঙ্গলবার সকালে কথা হয়। তিনি তখন টেকনাফ পৌর এলাকার শিলবনিয়া পাড়ায় নিজের বাসায় শুয়ে কাতরাচ্ছিলেন। তার সারা শরীরে মারধরের দাগ। দীর্ঘ পথ সাঁতরে অনেকটা ক্লান্তও তিনি। মাত্র ১৪ ঘণ্টা আগে যে বিভীষিকা নেমে এসেছিল, সে সবের দুঃসহ স্মৃতি অসুস্থ করে তুলেছে তাকে। সাদ্দামকে নিজের চোখে খুন হতে দেখেছেন তিনি।

কবীর জানান, পেশায় জেলে হলেও তার নিজের কোনো নৌকা নেই। স্থানীয় জেলে মোহাম্মদ হোসেনের নৌকায় মজুরি খাটেন তিনি। গত সোমবার সকালে মোহাম্মদ হোসেন (৩০) মাছ কিনতে নৌকা নিয়ে সেন্টমার্টিন দ্বীপে যান।

 

তিনিসহ মোট পাঁচজন নৌকার মালিকের সঙ্গে ছিলেন তখন। হোসেন এবং কবীর ছাড়াও ছিলেন নৌকার চালক আবদুল্লাহ (২৭), মোহাম্মদ সালাম (২৪), কবীর আহম্মেদ (২৬) ও সাদ্দাম (২৬)। সকাল ৯টায় তারা নৌকা নিয়ে কায়েকখালী বাজার থেকে সেন্টামার্টিনের উদ্দেশে রওনা হন। মাছ কিনে বিকেল ৩টায় ফেরার সময় তাদের সঙ্গে সেন্টমার্টিন থেকে পরিচিত আবুল হাশেমও (২৯) যোগ দেন।

ছয়জনকে নিয়ে ইঞ্জিন নৌকাটি টেকনাফে ফেরার সময় বিকেল ৪টার দিকে সাগর ও নাফ নদের মোহনায় নাইক্ষ্যংদিয়ায় পৌঁছলে মিয়ানমারের বিজিপির কয়েক সদস্য একটি স্পিডবোট থেকে গুলি ছুড়তে ছুড়তে নৌকার দিকে আসতে থাকে।

কবীর জানান, তারা তখন ইঞ্জিন বন্ধ করে দুই হাত উপরে তুলে দাঁড়িয়ে পড়েন। বিজিপি সদস্যরা স্পিডবোট থেকে এসে তাদের নৌকায় ওঠে। তার পর নির্বিচারে সবাইকে মারধর করতে থাকে।

 

 

এ সময় সাদ্দাম নৌকার কাগজপত্র নিয়ে দেখাতে গেলে তারা সেগুলো নদীতে ছুড়ে ফেলে দিয়ে সাদ্দামকে পেটাতে শুরু করে। তার হাত-পা ভেঙে ফেলা হয়। সাদ্দাম চিৎকার করে কাঁদতে থাকলে বিজিপি সদস্যরা রাইফেল দিয়ে প্রচন্ড জোরে বাড়ি দিয়ে মাথা ফাটিয়ে দেয়। এর পর তারা অজ্ঞান সাদ্দামকে সাগরে ফেলে দেয়।

কবীর জানান, এ সময় একজন বিজিপি সদস্য চিৎকার করে কোনো একটা অর্ডার করে। তা বুঝতে না পারলেও তাদের লক্ষ্য করে রাইফেল উঁচিয়ে গুলি করতে দেখে নৌকার জেলেদের সবাই সাগরে লাফিয়ে পড়েন। সাঁতরে কিছুদূর আসার পর কবীর দেখতে পান, তার পাশে আবুল হাশেমও সাঁতরাচ্ছে।

 

তারা নাফ নদের বেশ কিছুটা ভেতরে সাঁতরে আসার পর সন্ধ্যায় তাদের একটি ছোট নৌকা উদ্ধার করে শাহপরীর দ্বীপে নিয়ে আসে। বাড়িতে ফিরে কবীর জানতে পারেন, ট্রলার মালিক মোহাম্মদ হোসেনও ফিরতে পেরেছেন। তিনি বর্তমানে কক্সবাজারের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তবে আবদুল্লাহ ও মোহাম্মদ সালাম তখনও নিখোঁজ ছিলেন।

অন্তত লাশটি দেখতে চান সাদ্দামের স্ত্রী: কবীরের কাছ থেকে ঠিকানা নিয়ে টেকনাফ পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের জালিয়াপাড়ায় সাদ্দামের বাড়িতে গেলে তার স্ত্রী মিনারা বেগম লাকী কাম্নায় লুটিয়ে পড়েন। তার কাম্নায় পরিবেশ ভারি হয়ে ওঠে। তাদের দুটি শিশুসন্তান বিসমি (৪) আর রেশমী (২) এ সময় তার সঙ্গেই ছিল।

অশ্রুসজল কণ্ঠে লাকি বেগম জানান, তিনি এতিম। তার বাবা-মা কেউ বেঁচে নেই। স্বামীও চলে গেলেন। তিনি এ দুই সন্তান নিয়ে এখন কোথায় আশ্রয় নেবেনঙ্ঘ লাকী বলেন, ৯ বছরের সংসার জীবনে দিনমজুর স্বামী দিন আনলে দিন খেতাম। কোনো সঞ্চয় নেই। এখন থেকেই আমাদের না খেয়ে থাকতে হবে। কাঁদতে কাঁদতে লাকী জানতে চান, এতটা অভাগী আমি কী করে হলাম যে স্বামীর মরা মুখটিও আর দেখতে পাব না?

জনপ্রতিনিধি ও সংশ্নিষ্ট মহলের বক্তব্য: টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি জাফর আহমেদ এ ঘটনায় ক্ষোভ জানিয়ে বলেন, রোহিঙ্গাদের পর এবার বাংলাদেশি সীমানায় এসে নিরীহ বেসামরিক বাংলাদেশিদেরও খুন করতে শুরু করেছে মিয়ানমার। চরম উসকানিমূলক আচরণ করছে তারা। এ ঘটনার নিন্দা জানানোর ভাষা নেই। এ ঘটনার বিচার করতে হবে।

নিরীহ জেলেদের ওপর মিয়ানমার বিজিপির এই অত্যাচার ও হত্যাকান্ড প্রসঙ্গে কোস্টগার্ড চট্টগ্রাম পূর্ব জোনের অপারেশন কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট ফখরউদ্দিন জানান, নাইক্ষ্যংদিয়ায় বাংলাদেশি জেলেকে হত্যা ও অন্যদের সাগরে ভাসিয়ে দেওয়ার ঘটনা তিনি শুনেছেন। বিষয়টি জরুরিভিত্তিতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

 

এ বিষয়ে ২নং বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) টেকনাফের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এস এম আরিফুল ইসলাম বলেন, নাফ নদে মাছ শিকারি ট্রলারের ওপর হামলার ঘটনা শুনেছি। এটি সাগরের ঘটনা। কোস্টগার্ড ভালো বলতে পারবে।

রোহিঙ্গারা আসছেই: রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ এখনও অব্যাহত রয়েছে। গতকাল মঙ্গলবারও কক্সবাজারে উখিয়া ও টেকনাফের বিভিম্ন পয়েন্ট দিয়ে নতুন করে পাঁচ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থী বাংলাদেশে এসেছে। তাদের বেশিরভাগই নারী ও শিশু। শাহপরীর দ্বীপে গতকাল কথা হয় মরিয়ম বেগমের সঙ্গে। তিনি গতকালই এসেছেন এ দেশে। তার বাড়ি মিয়ানমারের দক্ষিণ আংডংয়ে।

 

 

তিনি বলেন, তিনদিন আগে সেনাবাহিনী ও রাখাইনরা তাদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে স্বামী আবদুল করিমকে ধরে নিয়ে যায়। পরে তিনি স্বামীর গলা কাটা লাশ পান রাস্তার ধারে। সেনারা এখনও অত্যাচার চালাচ্ছে। তিনি পরে ৩ সন্তান নিয়ে গতকাল এদেশে পালিয়ে এসেছেন।

read more
বিদেশ

যে কারণে ইসরাইল ও পাকিস্তানের গোয়েন্দাদের সাথে বৈঠক করেছেন খালেদা

Capture

 

 

সরকারকে উৎখাত করার জন্য বিএনপি ইসরাইল ও পাকিস্তানের গোয়েন্দাদের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ।

তিনি বলেন, আমরা জানতে পেরেছি বেগম খালেদা জিয়া লন্ডনে বসে বিভিন্ন দেশের গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে বৈঠক করেছেন। তারা সরকারবিরোধী কর্মকাণ্ডে লিপ্ত আছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে কুষ্টিয়া জেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে সাঁতার প্রতিযোগিতা উদ্বোধন অনুষ্ঠানের আগে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

 

হানিফ বলেন, বিএনপি যে ষড়যন্ত্রের রাজনীতি বিশ্বাস করে তা জাতির কাছে পরিস্কার। তারা সরকারবিরোধী কর্মকাণ্ডে লিপ্ত রয়েছে।

 

এ সময় কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো. জহির রায়হান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী রবিউল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সদর উদ্দিন খান, সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও জজ কোর্টের পিপি এ্যাড. অনুপ নন্দীসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মী ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার নের্তৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

read more
1 2 3
Page 1 of 3